সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

lekhok-sukhobor.jpg

যাত্রা শুরু করলো লেখক ডট কম

লিখুন একবার উপার্জন আজীবন - এই শ্লোগানকে সামনে রেখে যাত্রা শুরু করলো লেখক ডট কম। এর মাধ্যমে লেখকদের সম্মানিত করতে এক অভিনব উপায় চালু করতে যাচ্ছে লেখক ডট কমের স্বত্ত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান কালার টকিং লিমিটেড।

বাংলা ভাষাভাষী যে কেউ সহজ রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে এখানে লেখক হতে পারবেন। লিখতে পারবেন ভ্রমন, পর্যালোচনা, গৃহস্থালি বিষয়াদি থেকে শুরু করে নানাবিধ বিষয়ে। প্রেরিত লেখাটি পরবর্তী  ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সম্পাদক কর্তৃক পঠিত হবে এবং প্রকাশ উপযোগী হলে প্রয়োজনীয় ছবি, ভিডিও অথবা অলঙ্করণের সমন্বয়ে প্রকাশ করা হবে কালার টকিং নিয়ন্ত্রিত ৯টি অনলাইন প্রকাশনার যেকোনো এক বা একাধিক প্রকাশনায়।

প্রতিবেদন প্রকাশকালেই সম্পাদক লেখকের জন্য একটি এককালীন সম্মানী নির্ধারণ করে দিবেন। এই সম্মানীর পরিমান নির্ভর করবে লেখার বিষয়বস্তু এবং গ্রহণযোগ্যতার উপর।

একইসাথে প্রকাশিত হবার পর লেখাটি যতবার পঠিত হবে প্রত্যেকবারের জন্য লেখকের একাউন্টে একটি নির্দিষ্ট পরিমানের অর্থ যোগ হবে যা CPR (Cost Per Reading) হিসেবে উল্লেখিত হবে। এভাবে লেখাটি যতদিন আমাদের প্রকাশনায় থাকবে এবং পাঠক কর্তৃক পঠিত হবে, ততদিন লেখকের একাউন্টে নির্দিষ্ট হারে CPR যুক্ত হতে থাকবে।

এককালীন সম্মানী ও CPR থেকে উপার্জিত অর্থ মাস শেষে চেক অথবা বিকাশ একাউন্ট ট্রান্সফার এর মাধ্যমে লেখককে প্রদান করা হবে।

লেখকদের জন্য নির্মিত একটি বিশেষ ড্যাশবোর্ডে লেখক তার প্রতিবেদনের পাঠকসংখ্যা, তা থেকে অর্জিত অর্থের পরিমান সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য জানতে পারবেন। এছাড়া সেখানে পাঠকদের অবস্থান, বিভিন্ন প্রতিবেদনের পাঠকপ্রিয়তাসহ আরো অনেক ধরনের উপাত্ত থাকবে যা লেখককে তার পরবর্তী প্রতিবেদনের বিষয় নির্ধারণে সহায়তা করতে পারে।

এই প্রসঙ্গে কালার টকিং এর সহ প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ নাজিমউদদৌলা বলেন - “লেখালেখিকে পেশা হিসেবে নেয়াটা আমাদের দেশে অধিকাংশের ক্ষেত্রেই খুব ফলপ্রসু কোনো সিদ্ধান্ত নয়। আর্থিকভাবে লাভবানের খুব বেশি সুবিধা নেই বলে লেখালেখিতে যথেষ্ট আগ্রহ আছে এমন লোকও জীবনের একটা পর্যায়ে লেখালেখি ছেড়ে দেন। এতে আমাদের ভাষার সমৃদ্ধিও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে অনেকক্ষেত্রে।”

আরেক সহ প্রতিষ্ঠাতা রেজাউর রহমান বলেন - “বাংলা আমাদের প্রাণের ভাষা হলেও লেখালেখির ক্ষেত্রে আমরা অনেকক্ষেত্রেই ইংরেজির দিকে বেশি ঝুঁকে পড়ছি। কারণ অনলাইনে ইংরেজিতে লিখলে আর্থিক লাভবানের সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।”

“এটা আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস যে সঠিক সমাদর পেলে আমাদের লেখকরা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের জন্য অনেক অবদান রাখতে পারবেন। আমরা সীমিত সাধ্যে এক বিশাল স্বপ্ন নিয়ে লেখকগোষ্ঠির কাছে আসছি। তাদের সহযোগীতা ছাড়া এই স্বপ্নপূরণ সম্ভব নয়।” - বলেন লেখক ডট কমের প্রধান সম্পাদক এবং সহ প্রতিষ্ঠাতা তিরানা খান।

লেখক ডট কম সম্বন্ধে আরো বিশদ জানতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট lekhok.com পরিদর্শন করতে পারেন। লেখক হিসেবে যোগ দিতে চাইলে এখনই ঘুরে আসুন app.lekhok.com। আমাদের প্রতিষ্ঠান এবং এর অপরাপর সেবা সম্পর্কে জানতে পরিদর্শন করুন colortalking.com

পরামর্শ অথবা প্রশ্ন থাকলে সরাসরি লিখতে পারেন এই ঠিকানায় - hello@colortalking.com

ধন্যবাদ।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Lekhok, notice, announcement, writer, bangla, reward, language, literature